গল্প

ভালোবাসার ফোড়ন পর্ব ২৪

মিমি মুসকান

এখনো জরিয়ে রেখেছেন উনি আমাকে। আমার গলা দিয়ে আওয়াজ বেরুচ্ছে না। কি বলবো বুঝে উঠতে পারছিলাম না। কেমন জানি বাকরুদ্ধ হয়ে আছি। উনার এই স্পর্শ আমার চঞ্চলতা বাড়িয়ে দিচ্ছে। এই প্রথম আমাকে ছুঁয়েছেন তিনি। আমার কাঁপা কাঁপি যেন আরো বেড়ে গেছে। আমি কাঁপা কাঁপা গলায় উনাকে ডাকলাম…
আ..হি..য়া..ন
আমার আওয়াজ শুনে উনি এবার আমাকে ছেড়ে দিলেন। কেমন করে তাকিয়ে আছে আমার দিকে। আমি উনার চোখে যেন ভয় দেখতে পাচ্ছি। সেটা কি আমাকে হারানোর? জানি না তবুও এটাই মনে হচ্ছে আমার। আমি তাকিয়ে আছি উনার চোখে!

হঠাৎ উনি আমার হাত ধরে আমাকে একটা ধমক দিলেন। উনার ধমকে আমার ভাবনায় ছেদ ঘটল। লাফিয়ে উঠলাম। অতঃপর উনি বলতে শুরু করলেন…
এখানে কি করছো তুমি? বলেছিলাম না আমার সাথে সাথে থাকবে? একা একা এতো দূরে কেন এসেছো। জানো পাগলের মতো খুঁজছিলাম তোমায়?
উনাকে দেখেই মনে হচ্ছিল কিছু খুঁজছিল সেটা যে আমাকে এতোক্ষণে বুঝলাম আমি। আমি কিছু বলতে যাবো এই আগে উনি আমার হাত ধরে টানতে টানতে নিয়ে যেতে লাগলেন আর বলতে থাকলেন…
অনেক হয়েছে আর ঘুরা লাগবে না। এখন সোজা বাসায় যাবো, একদম ঢাকা’য়।

কিহহহ?

কথা বলবা না একদম চুপচাপ চলো আমার সাথে!
উনার এমন ধমকানিতে আমি আর কিছুই বললাম না। উনি আমাকে ধরে গাড়ি’র কাছে নিয়ে গেল। দূরে অনেক ভিড়, অনেক মানুষ ‌ দেখে মনে হচ্ছে কিছু একটা হয়েছে ওখানে। আমি উনাকে জিজ্ঞেস করি…
ওখানে কিছু হয়েছে?
আমার এমন কথায় উনি আমার হাত আরো শক্ত করে ধরলেন। কিন্তু আমার কথার জবাব দিলেন না। আমাকে গাড়িতে উঠিয়ে দিলেন। আমি আবার জিজ্ঞেস করি…
আমার মনে হচ্ছে কারো এক্সিডেন্ট হয়েছে ওখানে।
গাড়িতে বসে…
চুপ করো তুমি, এতো বক বক করো কিভাবে। মুখ ব্যাথা করে না তোমার!
বুঝলাম না এমন কি বললাম যার জন্য এতো ধমকানি শুনতে হচ্ছে আমাকে। চুপ হয়ে গেলাম! উনি গাড়ি চালাতে শুরু করলেন। গাড়ি ওই ভিড়ের ‌পাশ দিয়ে গেলেন। আমি গাড়ি থেকে একটু দেখলাম। একটা মহিলা রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। তার শাড়ি পুরো আমার শাড়ি একরকম। দেখে মনে হচ্ছে যেন এটা আমি!
আমি অবাক হয়ে উনার দিকে তাকালাম। উনি একটি বার আমার দিকে তাকিয়ে আবার ড্রাইভে মনোযোগ দিলেন। আমি এবার বলতে শুরু করি..
দেখলেন আপনি উনার আর আমার শাড়ি একরকম! মনে হচ্ছে যেন আমি।
উনি শান্ত গলায় বললেন…
তুমি এই শাড়ি আর কখনো পড়বা না।

আমি অবাক হয়ে বলি…
কিহহ কেনো? আপনি জানেন এই শাড়িটা আপনার দেওয়া প্রথম গিফট! পড়বো না কেন?
বলেছি তাই! বাসায় গিয়েই চেঞ্জ করে ফেলে ফেলবা।
মানে কি? ফেলবো কেন? নষ্ট হয়েছে নাকি শাড়িটা। কতো সুন্দর একটা শাড়ি! একেবারে নতুন!
আমি বলেছি তাই! নতুন এমন ১০ টা কিনে দেবো এটা পড়বা না ব্যস।
আরে এটা কেমন যুক্তি!
উনি কোনো কথা বললেন না। কেন জানি মনে হচ্ছে নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করছেন উনি। আমি আর কথা বাড়ায়নি। আজব তো উনি বললেই কি ফেলে দেবো নাকি। কখনো না!
আমাকে নিয়ে বাসায় আসলেন। অতঃপর আমাকে সব গোছাতে বলেন কারন আমরা নাকি এখন’ই ঢাকা’য় রওনা দেবো। আমি অনেকটা অবাক হলাম। কি বলছেন কি উনি এখন’ই ঢাকায়। কিন্তু আমাদের আরো কিছুদিন থাকার কথা ছিল এখানে। তাহলে! তবুও উনার কথায় রাজি হলাম। সব গোছগাছ করলাম। গোছানোর কিছুই নেই কারন সব ব্যাগেই ছিল। তবুও একটু চেক করলাম। উনার জ্যাকেট এখনো আমার শরীরে। কেন জানি খুলতেই ইচ্ছে করছিল না। এমন সময় দাদু এলেন। উনি দাদু’র সাথে কথা বার্তা বললেন। দাদু আমাদের যেতে দিতে চাইলেন না কিন্তু উনি এক কথা নিয়েই বসে আছে। রাগে শরীর জ্বলছে আমার। আমি গিয়ে বলি ব্যাগ আনতে সব গোছানো হয়েছে। উনি আমার দিকে তাকিয়ে ‌যেন রেগে গেলেন। হুট করেই আমাকে ঘরে টেনে নিয়ে এলেন। বললেন ..

বললাম না এই শাড়ি চেঞ্জ করো! করোনি কেন?
বাসায় গিয়ে করবো। এখন চলুন!
না এখন’ই করো।
পাগল হয়ে গেলেন নাকি আপনি।কখন থেকে পাগলামি করে যাচ্ছেন। কি হয়েছে টা কি আপনার!
নিহা কথা বাড়িও না যেটা বললাম সেটা করো।
না আগে আপনি আমাকে বলুন হয়েছে টা কি? এতো তাড়াহুড়ো কেন করছি আমরা! কারনটা কি?

– নিহা!

কি নিহা ! কিছু শুনবো না আমি! আমি যতক্ষন না বলছেন কি হয়েছে আমি কিছু করবো না ব্যস।
বলেই খাটে বসে পড়লাম।
উনি আমার দিকে কেমন করে জানি তাকিয়ে রইলেন। অতঃপর চোখ সরিয়ে বেরিয়ে যেতে নিলেন। ঠিক তখন বলে উঠি.. আপনি কি ওই মহিলা কে আমায় ভেবেছিলেন।
আমার কথা শুনে উনি মুহূর্তে’ই থেমে গেলেন। আবারও ঘামতে শুরু করলেন। আমার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন। আমি আবার বলি..
কি হয়েছিল তখন! আপনি হঠাৎ এতো উত্তেজিত কেন হলেন।
উনি আমার কাছে এসে একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন..
তখন কথা বলা শেষ করে একটা গাড়ির আওয়াজ পাই আমি। কি হয়েছে জানতে সেখানে গিয়ে দেখি একজন মহিলা রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। তার মুখ দেখা যাচ্ছে না কিন্তু শাড়ি তোমার মতো। খানিকক্ষণ’র‌ জন্য মনে হলো এটা তুমি! আমি কিছুক্ষণ ঠাঁই সেখানে দাঁড়িয়ে রইলাম। আমার কাছে লাগছিল যেন সব কিছু ধমকে গেছে। সময়টা যেন ওখানেই শেষ। নিস্তব্ধ হয়ে ছিলাম। হঠাৎ কেউ এসে উনার মুখ ঘুরালেন। তখন বুঝলাম ওটা তুমি না। কি খুশি হয়েছিলাম বোঝাতে পারবো না। হুট করেই মনে পড়ল আমার কাছে তুমি নেই। পাগলের মতো খুঁজতে থাকলাম তোমাকে। অনেক খোঁজাখুঁজি’র পর যখন তোমাকে পেলাম তখন ও বিশ্বাস হচ্ছিল না। মনে হচ্ছিল মনের ভুল!

আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে আছি, উনি কপাল কুঁচকে তাকিয়ে আছে। বিশ্বাস’ই হচ্ছিল না আমার উনি আমাকে এরকম ভাবে খুঁজছিলেন। আমি দাঁড়িয়ে বলি…
সত্যি আপনি এমন ভাবে খুঁজছিলেন আমায়!
উনি এবার আমার কান মুলে দেয়। আমি চিৎকার করে উঠি….
আম্মুউউউউ! কি করছেন ব্যাথা লাগছে তো!
লাগুক। মজা নিচ্ছো তুমি! জানো কি কষ্ট হয়েছিল আমার!
মুখ ভেংচি দিয়ে বলি….
মজা কেন নেবো, আমার সত্যি’ই বিশ্বাস হচ্ছে না আপনি আমায় খুঁজছিলেন!
নাহলে নাই! একটা কথা কি জানো সব দোষ তোমার! আমার সাথে না থেকে একা একা ঘুরেছো কেন?
বেশ করেছি। আপনাকে ছাড়া একা একা ঘুরতেই ভালো লাগছিলো।
ভালা লাগা বের করাচ্ছি। ঘুরা ঘুরি বন্ধ এখন বাসায় যাবা। এটাই পারবেন শুধু। ভালোই হতো আমি মরে গেলে। আপনার জ্বালানি সহ্য করতে হতো না।

আমার কথায় উনি ‌অসহায় ভাবে আমার দিকে তাকালেন। অতঃপর কিছু না বলে ব্যাগ নিয়ে বেরিয়ে গেলেন। আমি উনার পিছু পিছু গেলাম। দাদু কে বিদায় দিয়ে অবশেষে বের‌ হলাম আমরা। উনি গাড়ি ড্রাইভ করছেন আমি বসে আছি। দুজনের মাঝে নিরবতা। কেমন গম্ভীর হয়ে আছেন উনি! নিরবতা ভেঙ্গে বলি…
কি হলো কিছু বলছেন না যে!

– তুমি শাড়ি টা চেঞ্জ করলে না নাহ!

আরে রাখুন! ভাগ্যে যা আছে তাই হবে। শাড়ির জন্য কখনো কিছু হয় না বুঝলেন।
উনি আমার দিকে তাকিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললেন। আবার নিরবতা কাজ করল। আমি আবার বলে উঠি.. আচ্ছা এই টপিক বাদ দিন। আমার কথা শুনুন। ঢাকা গিয়েই ইতি আর আকাশের কাজ টা সেরে ফেলতে হবে।
এতো তাড়া কেন?
আরে তাড়া দিতেই হবে। এই কয়েকদিন ভার্সিটিতে যায় নি ইতি এতোগুলো প্রশ্ন করবে তার মুখ বন্ধ রাখতে হলে এই কাজটা করতে হবে।
বলবে বর এর সাথে ঘুরতে গেছি।
তাহলে তো আমাকে ছাড়বেই না। জিজ্ঞেস করবে কোথায় গেলি, কি করলি, কি খেলি বাপরে বাপ! আবার বলবে তোর বর কে দেখা!
উনি আমার দিকে তাকিয়ে হেঁসে বলল..
দেখিয়ে দিবা!
কোনমতে না!

কেন?

আপনাকে আবার বর বললে ও জীবনেও বিশ্বাস করবে না শুধু ও কেন কেউ’ই করবে না।
তাহলে আমি বলবো!
না থাক বলার দরকার নেই।
হুম তোমার ইচ্ছা।
রাতের মধ্যে বাসায় পৌঁছালাম আমরা। মা বাবা একটু অবাক হলেন কারন তাদের না জানিয়ে এসে পড়লাম। তাঁরা বেশি কিছু জিজ্ঞেস করেনি শুধু বললো ফ্রেশ হয়ে নিতে। অতঃপর ফ্রেশ হয়ে এসে সেখানকার গল্প করতে লাগলাম।‌ রাত টা এভাবেই পার করে দিলাম।

পরদিন খুব সাবধানে ভার্সিটিতে ঘুরা ঘুরি করছি তার কারনটা হলো ইতি! আজকে ইতি পেলেই আমার বারো টা বাজাবে আমি নিশ্চিত! চুপিচুপি হেঁটে ক্লাসরুমে যাচ্ছি এমন সময় ইতি আমার সামনে এসে দাঁড়াল। ওকে দেখে থতমত খেয়ে গেলাম। ইতি আমাকে দেখে বড়ো করে একটা সালাম দিলো। অতঃপর বলতে লাগল…
খবর কি আপনার, মাঝে মাঝে যেন মনে হচ্ছে হাওয়ায় ভাসছেন।
হাওয়ায় ভাসা যায়!

চুপ ছেমড়ি! তোরে নদীতে না মাইরা সাগরে ভাসামু। আছিলি কই এতোদিন তুই।
কেন তুই জানিস না শশুর বাড়ি!
ফাজলামি বন্ধ করবি।
আরে সত্যি কথা।
হঠাৎ আমার হাত থেকে ফোন নিয়ে..
ফোন টা তো খুব সুন্দর! কে দিলো তোর বর!
হ্যাঁ বার্ডডে গিফট বলতে পারিস।
হ্যাঁ কাল তো তোর বার্ডডে ছিল। ( ব্যাগ থেকে চকলেট বের করে ) এই নে চকলেট! তোর জন্য এনেছিলাম কিন্তু মনে হচ্ছে এইর চেয়ে বেশি ভাইয়া দিয়েছে! ( হেসে বলল )

হি হি হি হাসা শেষ! যেমন ভাবছিস তেমন কিছু না।
আচ্ছা ফোনের লক কি বল!
লক করা নেই!
কি বলিস? লক করিস নি।
আরে এতো কিছু করে কি হবে। ফোন দিয়ে কথা বলার দরকার কথা বলবো।
সাথে বরের সাথে প্রেম করবো এটা বল। আচ্ছা বরের পিক দেখা।
ছবি টবি নেই!
কেন তুলিস নি?

– নাহ!

আজব তো কি এমন বর তোর যে এতো লুকিয়ে রাখিস।
লুকানোর কি আছে।
তাহলে দেড় মাস হলো বর কে দেখলাম না আর না পিক তুললাম। এতোই কি বুড়ো তোর বর। আচ্ছা সেদিন তো তুই বললি ওই বুড়োর সাথে বিয়ে হয় নি। তাহলে দেখাতে কি?
হ্যাঁ এটা সত্যি আমি ইতি কে বলেছিলাম ওই ‌লোকের সাথে বিয়ে হয় নি। তবে কার সাথে হয়েছে এটা বলেনি। ইতি আবারও ‌বলতে শুরু করল…
আমি তোর ফোনে আমার নাম্বার সেভ করে দিচ্ছি রাতে দুজনে কথা বলবো। ঠিক আছে! আর একটা ফেসবুক আইডি খুলে দেব।
সেটা দিয়ে কি হবে।
পিক আপ হবে,‌রিয়েক্ট হবে, কমেন্ট হবে, চেটিং হবে অতঃপর তুই চাইলে আর কি! তবে সেটা তোর ইচ্ছা কার সাথে করবি।
দু’জনেই জোরে হেসে দিই। আমি বলি..
এসবের টাইম নেই। বাদ দে..

আচ্ছা আমি খুলে রাখি মন চাইলে দেখিস, তবে আমি যা বললাম ভুলেও করিস না। শেষে তোমার বর তোমাকে রাখলেও ফোন আর রাখবে না বুঝলে।
ইতির কথায় আবারও একদফা হাসির আওয়াজ। এর মধ্যে আনিকা এসে হাজির আমাদের সামনে। তাকে দেখেই ইতি মনে মনে তার চৌদ্দ গুষ্টি উদ্ধার করছে এটা তার মুখ দেখেই বোঝা যাচ্ছে। আমি ইতি কে একটা খোঁচা দিলাম। আনিকা’র সাথে সাথে টিনা আর নিতি আসলো। আনিকা একটা কার্ড আমার সামনে দিল। আমি জিজ্ঞেস করলাম…
এটা কি আপু!
আমার বিয়ের কার্ড!
কথাটা শুনে আমি একটু অবাক হলাম কিন্তু ইতি মনে ইচ্ছে আকাশ থেকে টপকে পড়ল না জানি আকাশ ভাইয়ার মন থেকে হি হি হি। আমি ফিসফিসিয়ে ইতি কে বলি…
কি হলো তোর!
কিছু না।
যদি বিয়েটা আকাশ ভাইয়ার সাথে হয়!

ইতি রেগে চলে গেলো।‌আমি আনিকার সাথে কথা বলে ইতি’র পিছু পিছু গেলাম। ইতি মন খারাপ করে বসে ছিল। আমি ওর ঘাড়ে হাত রাখলাম। সে ছল ছল চোখে আমার দিকে তাকিয়ে কার্ড এর দিকে তাকাল। আমি চোখ দিয়ে ওকে আশ্বাস দিয়ে বললাম…
তোর পথের কাঁটা সরে গেছে, বিয়েটা অন্য কারো সাথে তবে আকাশ ভাইয়া কতোদিন তোর থাকবে জানি না।
জানা লাগবে না। কিন্তু তোকে ইনভাইট করল কেন?
শুধু আমাকে না তোকেও করেছে। এই যে তোর কার্ড না নিয়ে চলে এলি।
বেশ করেছি আমি যাবো না।
আকাশ ভাইয়া কিন্তু যাবে!

যাক
বলেই উঠে চলে গেল। আমি পরলাম বিপদে, কি যে করি এই মেয়েটাকে নিয়ে। এভাবে কষ্ট পাবে নাকি, আজকেই উনার সাথে ওদের বিষয় নিয়ে কথা বলতে হবে।
সন্ধ্যায় আকাশ তার রঙ ধারন করল। পাখিরা তাদের নীড়ে ফিরে যাচ্ছে। উনি চুপ করে তাকিয়ে আছে আকাশের দিকে। আমি এক কাপ চা তার সামনে ধরলাম। তিনি আমার হাত থেকে চা নিয়ে চুমুক দিতে দিতে তার ছোট বাগানের কাছে গেলেন। আর বলতে শুরু করলেন..
– বাগান টা তুমি পরিষ্কার করেছো!
হুম বিকালে দেখলাম, তাই পরিষ্কার করে রাখলাম।
এতো দিনের ঝামেলায় এগুলোর কথা প্রায় ভুলেই গেছিলাম। মা মনে হয় রোজ সকালে পানি দিয়ে যায়।
– হুম! দিয়ে যান তো।
আনিকার বিয়ে জানো!
ইনভাইট করেছে আমাকে।
তাই নাকি! ভালো আমার সাথে যেও।
হুম কিন্তু ইতি আর ভাইয়ার কথা ভাবলেন।
আকাশের সাথে কথা হলো।‌ কালকেই যা করবার করবে।
ভালোই হলো না হলে আমি’ই বলতাম কিছু করতে।
ইতি’র মন খারাপ!
হুম দেখি যদি কাল কিছু করতে পারি।
পারি না করবেন বুঝলেন।
বলেই চলে এলাম।আসার আগে উনার কথার শুনতে পেলাম..
যা বাবা ঝারি দেওয়ার কি হলো।

পরদিন বিকেল বেলা,
আহিয়ান বললো ইতি কে বেরুতে। অতঃপর উনার দেওয়া ঠিকানায় চলে যেতে। আমি তার কথা মতো ইতি কে নিয়ে বেরিয়ে গেলাম। তবে সেটা কম খাটনির ছিল না। অনেকটা ঝামেলার কারন ইতি’র ফ্যামিলি ওকে বেরুতে দিচ্ছিল না। অনেক বুঝিয়ে বেরিয়ে এলাম। যাই হোক উনার বলা মতো জায়গায় পৌঁছে গেলাম। যেয়ে দেখি একটা রেস্টুরেন্ট। আমি আর ইতি ভিতরে প্রবেশ করি। দেখি অনেক মানুষ জন। খানিকটা অবাক হলাম এরকম জায়গায় আসতে বললেন উনি, তার মধ্যে ইতি তো একগাদা প্রশ্ন জুরে দিচ্ছে। কোনোমতে উকে সামাল দিচ্ছি।
হঠাৎ একজন ওয়েটার আমার কাছে এসে বলে…
আপনি মিসেস নিহা!
জ্বি আমি।
আপনাকে ছাদে যেতে বলা হয়েছে..
সিঁড়ি’র দিকে ইশারা করে।
আচ্ছা কি ঠিক আছে।

ইতি বলে ওঠে..
কিসের ঠিক আছে, কোথায় যাবো আমরা এখন। কি বলছিস তুই।
আরে চল তো আগে!
কিন্তু!
বিশ্বাস করিস না আমায় চল!
বলেই ওর হাত ধরে ছাদে নিয়ে গেলাম। ছাদে এসে আমি আর ও হতবাক। অসম্ভব সুন্দর করে সাজানো হয়েছে ছাদ টা। চারপাশ লাল রঙের বেলুন দিয়ে সাজানো। আর একজন দাঁড়িয়ে আছে উল্টো ঘুরে।
আমি তাকে দেখে কয়েক পা পিছিয়ে গেলাম। চোখের ইশারায় ইতি কে সামনে যেতে বললাম। সে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। চোখ বন্ধ করে আশ্বাস দিলাম। অতঃপর সে ভিতরে ঢুকলো। তখন হুট করে কেউ আমার বাহু টেনে নিয়ে গেল….

#চলবে….

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button