গল্প

ভালোবাসার ফোড়ন পর্ব ২৬

মিমি মুসকান

প্রায় আধঘণ্টা হয়ে গেল, আমি খাটে বসে আছি। আমার পাশে বসে আছে আহিয়ান আর সামনে ইতি আর আকাশ ভাইয়া। তারা দুজনের দিকে আমি চোখ তুলে তাকাতে পাচ্ছি না শুধু নিচের দিকে তাকিয়ে আছি। কিভাবে তাকাবো ইতি যে অনেকটা কষ্ট পেয়েছে আমি জানি। কিন্তু আরেকজন, উনি তো এমন ভাবে বসে আছে যেন কিছু হয় নি। কতোক্ষণ ধরে বসে ফোনের‌ মধ্যে ঢুকে আছে। এতো শান্ত হয়ে বসে আছেন কীভাবে এটাই আমার ভাবনার বাইরে।
আরো কিছুক্ষণ পর একটা সার্ভেন্ট এসে চা দিয়ে গেল। বোধহয় মা পাঠিয়েছেন। উনার এবার একটু নড়েচড়ে বসলেন। এক কাপ চা নিয়ে তাতে চুমুক দিলেন। আমি আড় চোখে উনাকে দেখলাম। অতঃপর উনি এক কাপ চা আকাশ ভাইয়া’র সামনে ধরে বলল…
এই নে চা খেয়ে মাথা ঠান্ডা কর।

আমি অবাক হয়ে গেলাম। এতো শান্ত ভাবে উনি কিভাবে বললেন। মনে হচ্ছে এতোক্ষণ বসে শুধু ভাবল কিভাবে কি বলবে। আকাশ ভাইয়া ও শান্ত গলায় বললেন..
চা খেয়ে মাথা ঠান্ডা হবে না।
তাহলে, ঘরে আছে আমি নিয়ে আসবো।
আকাশ ভাইয়াও এইবার অবাক হলেন। কি বললেন বুঝতে পারলেন না। উনি আবারও বললেন..
ওটা খেলে ‌ওটোমেটিক তোর মাথা ঠান্ডা। আর টেনশন হবে না।
ভাইয়া বলে ওঠেন…
শালা এতো দিন ধরে আসতে চাইলাম, আনলি না। আর এখন এসব বলছিস।
ইতি এতোক্ষণ শান্ত ভাবেই সব শুনছিল। এখন বলে ওঠে…
কেন আসতে!
আকাশ ভাইয়া একটু থতমত খেয়ে যান। উনি এবার হেসে দেন। আকাশ ভাইয়া একটা শুকনো ঢোক গিলে বলে…
আরে আড্ডা দিতে আসতাম। কিন্তু এই আহি’র বাচ্চা আসতে দিতো না। বলতো আজ না অন্যদিন। শালা এটা বলে নি ঘরে বউ আছে তাই নিয়ে যেতে পারবো না।

আমি লজ্জায় মাথা আবারও নিচু করে ফেললাম। ইশ আমার জন্য উনি কি না কি করেছেন। আমি তো এইসব কিছুই জানতাম না।
আহিয়ান বলে উঠে…
আরে এটা নিয়ে এতো কথা বলার কি আছে? বিয়ে তো সবাই করে।
আকাশ ভাইয়া বলেন…
আমি কবে বললাম বিয়ে টা শুধু তোর জন্য’ই তাও লুকিয়ে’ই করতে হবে! কিন্তু কথা হচ্ছে বিয়ে করেছিস সেটা কেন বলিস নি। লুকিয়ে রাখলি কেন?
কি করবো। তোরা তো আগেই থেকে ভূতনি কে নিয়ে আমার পিছনে লেগে থাকতি। এখন বিয়ে করেছি জানলে আরো কতো কথা শুনাতি তাই বলে নি।
ভাইয়া কিছু বলবে তার আগে ইতি বলে উঠে…
ভূতনি টা কে? নিহা!
উনি মাথা নাড়ান। ইতি এবার আমার দিকে তাকিয়ে বলে..
একদম ঠিকঠাক নাম দিয়েছে।

আকাশ ভাইয়া আর উনি হেসে দিলেন। কিন্তু ইতি গম্ভীর গলায় আবার বলতে শুরু করে..
আচ্ছা তুই আমাকে কেন বলিস নি বল তো। আমাকে বললে কি হতো। আমি তো আর নিতি না যে তোকে পানিশমেন্ট দিতাম।
আমি মুখ বন্ধ করে বসে আছি। ইতি এবার উনাকে বলে..
আর ভাইয়া আপনিও , কতো হেল্প করলাম আপনার আর আপনি আমাকে এভাবে ঠকালেন।
হেল্প করার কথা শুনে আমি খানিকটা অবাক হলাম। মুখ তুলে ওনাদের দিকে তাকালাম। ৩ জন’ই চুপ, আমি আরো অবাক হলাম। ইতি কে জিজ্ঞেস করতে নিলাম তার আগে আহিয়ান বলে উঠলো…
কিন্তু তোরা কিভাবে আমাদের ধরলি, তোরা কিভাবে জানলি এইসব?
আকাশ বলে ওঠে …
জানলাম কোথায়, সন্দেহ করলাম। আমার সন্দেহ অনেক আগে থেকেই ছিল। যেদিন তুই আমাকে বাসায় আসতে দিস নি সেদিন। আর ইতি..
ইতি বলে উঠে…
নিহা কে কতো বললাম বর এর ছবি দেখা, ও কখনো দেখাতো না। তাই সন্দেহ হচ্ছিল কে এই বর। কিন্তু ভাইয়ার কথা আমার মাথায় আসে নি। যখন সেদিন তোদের পাশাপাশি রেস্টুরেন্টে বসে থাকতে দেখি আর ঝগড়া করতে দেখি। তখন মনে হচ্ছিল।

আকাশ ভাইয়া বলে…
তার মধ্যে তোর বলে উঠা আমার মা এতো খারাপ না যেখানে আমরা নিহা’র শাশুড়ি কথা বলছিলাম। অতঃপর আমি ইতি প্ল্যান বানালাম।

প্ল্যান মতো নিহা’র ফোন সাইলেন্ট করে শপিং এ নিয়ে যাওয়া।
আর এদিকে তুই চিন্তা করলে তোকে আরো বাড়িয়ে বলা। দিনকাল ভালো না, কিছু হয়ে যেতে পারে এরকম। যখন তুই বের হয়ে ইতি কে ফোন করলি তখন ইতি আমায় মেসেজ করলো আর আমি সেখানে পৌঁছে গেলাম আর তোমাদের হাতে নাতে ধরলাম।
আমি আর উনি হা করে উনাদের কথা শুনছি। কি বলছে ওরা এতো কিছু করল ওরা। আর আমরা কেউ কিছু ভাবে নি। আকাশ ভাইয়া বলে ওঠে..
কিন্তু আর যাই হোক আহি কিন্তু সেই ভাবে নিহা কে চোখে হারায়। ভার্সিটিতে সারাক্ষণ নজর শুধু নিহার দিকেই থাকতো। আমি তো প্রথমে প্রেম টেম কিছু ভেবেছি। আবার নিহা’র বিয়ে হওয়াতে সেটা বাদ দিলাম।
ইতি বলে উঠে…
কিন্তু কে জানতো ওদের ভালোবাসায় ফোড়ন ফুটতেও শুরু হয়ে গেছে আর সেটা বিয়েতেও চলে গেছে।
আমি আর উনি একসাথে বলে উঠি…
এরকম কিছু না!
ওরা দুজন হা করে তাকিয়ে থাকে আমাদের দিকে। আমি বলে উঠি..
আমাদের মাঝে এরকম সম্পর্ক না আগে ছিল না এখন আছে।
উনি বলে উঠে..
আর কখনো হবেও না।
ঠিক বলেছেন, আপনার মতো একটা ছেলেকে আমি কখনো ভালোবাসবো না।
তোমার মতো একটা ভূতনি কে আমিও কখনো ভালোবাসবো না।

– হুহ।

আকাশ ভাইয়া বলে ওঠে..
আরে আরে রাখ তোরা। এতো ঝগড়া করিস কিভাবে তোরা।
ইতি বলে উঠে…
ভালো না বাসলে বিয়ে করলি কেন?
ইতি’র কথায় আমি চুপ হয়ে গেলাম। কিন্তু কেন? বলে দিই আমাদের বিয়েটা কিভাবে হয়েছিল। আমি উনাকে বিয়ে করতে চায় নি। উনি জোর করে বিয়ে করেছে আমাকে। আর তার কারন আমার কাছে আজও অজানা। আমি মাথা নিচু করে হাত মুষ্টিবদ্ধ করে আছি। কিছুক্ষণ নিরবতা’র পর উনি বলে উঠে..
বিয়েটা আমি করেছি। আর তোরা এতো ভাবিস না আমি তোদের ট্রিট দিয়ে দেবো।
আকাশ ভাইয়া বলে..
সেটা তোমাকে দিতেই হবে। না হলে আমরা ছাড়ছি না।
উনি বলে উঠে…
হুম দেবো দেবো। এখন চা খা!

ইতি এবার এসে আমার হাত ধরে দাঁড় করিয়ে বলে ওঠে..
আচ্ছা তোকে এইবারের জন্য মাফ করলাম। কিন্তু এখন ভাবনা শুধু কালকের দিনের অপেক্ষা। নিতি’র মুখে ঝামা ঘষে দিবো একদম। এতোদিন শুধু কথায় কথায় আমার আহি করতো নাহ। এখন দেখবো ওর মুখ কোথায় থাকে। যখন জানবে আহিয়ান ভাইয়া’র বউ তুই তখন ওর মুখ দেখার মতো থাকবে।
আমি ইতি কে বলে উঠি…
না বলার দরকার নেই। তুই কিছু বলবি না কাউকে।
আমার কথায় সবাই অবাক হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে থাকে। ইতি কিছু বলতে যাবে আমি তার আগে বলে উঠি…
আমি মানা করেছি ব্যস। আর কিছু জিজ্ঞেস করিস না প্লিজ।‌
বলেই চলে আসলাম ওখান থেকে। ইতি আমার পিছন পিছন আসলো।‌আমি এসে রান্না ঘরে ঢুকলাম। ইতি আমার ঘাড়ের দিকে হাত রেখে বলে..
কি হয়েছে তোর। এমন করছিস কেন?

আমি শান্ত গলায় বলি….
ইতি তুই জানিস না বিয়েটা কিভাবে হয়েছে। আর আমি উনার বউ এটা জানলে সবাই উনাকে নিয়ে হাসাহাসি করবে।
আজব তো হাসাহাসি কেন করবে?
আমাকে মানায় না উনার সাথে! আর তাছাড়া..
তাছাড়া কি?
কিছু না। বাদ দে..
লুকাতে চাইছিস। আচ্ছা থাক! যখন তোর মন চাইবে বলিস। আমি শুনবো।
ইতি’র কথা’র উওরে আমি একটা মুচকি হাসি দিলাম।
রাতে বেলকনিতে দাঁড়িয়ে আকাশ দেখছি। রাতের আকাশ! ভালোই লাগছে দেখতে। রাতের ‌ঠান্ডা বাতাস ছুঁয়ে যাচ্ছিল আমায়। হঠাৎ পাশে উনার উপস্থিতি অনুভব করলাম। খানিকক্ষণ দুজনেই নিরব ছিলাম। উনি বলে উঠেন…
ওরা জেনে গেছে তুমি এখনও কেন লুকাতে চাইছো!

– আমি কিছু লুকাতে চাইছি নাহ

-তাহলে কেন না বললে নিতি কে বলতে। অনেক অপমান করে ও তোমায়। তুমি বললে ও তোমায় কিছু বলবে না
আচ্ছা আপনি আমায় বলবেন বিয়ের কারন টা। তাহলে আমি বলবো!আমার কথায় উনি চুপ হয়ে গেলেন।‌সবসময় এমন’ই করেন উনি।‌ বিয়ের কারন জিজ্ঞেস করলে উনি কিছু বলেন না। শুধু বলেন সব কারন জানতে হয় না। আজও তাই বলে চলে গেলেন। আমি ওখানেই নিস্তব্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম।
পরদিন ভার্সিটিতে…
হুট করেই ইতি আমাকে টানতে টানতে কোথায় নিয়ে যেতে লাগল। কিন্তু কোথায় সেটা বলছে না। খেয়াল করলাম ইতি আমাকে উনার কাছে নিয়ে যাচ্ছে। সেখানে উনার সব বন্ধু’রাও আছে। নিতি,টিনা, আনিকা, নাহান আকাশ আর আনাফ ভাইয়া। উনি মাঝখানে ফোন হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। ইতি আমাকে নিয়ে উনার পাশে দাঁড়াল। সবাই অনেকটা অবাক। আকাশ ভাইয়া বলে উঠল..
তো আমাদের ফ্রেন্ড সার্কেলের নতুন ফ্রেন্ড।
নিতি বলে উঠল…
হাই নিহা! ওয়েল কাম আমাদের ফ্রেন্ড সার্কেলে তোমাকে।

আমি খানিকটা অবাক হলাম। বিয়ের কথা বলবো না এভাবে ফাঁসালো আমাকে ইতি। ইতি দাঁত বের করে হাসছে। টিনা বলে উঠে..
একজন ফ্রেন্ড আরেকজন ভাবি! তাই না!
ইতি বলে উঠে…
আমি তোমার ছোট নাম ধরে ডাকলেই হবে।
আনিকা বলে ওঠে..
তা ঠিক আছে। কিন্তু আকাশ এর পছন্দ দেখে আমি আসলেই অবাক।
ইতি হেসে বলে উঠে..
কি বলো এতটুকুতেই অবাক। এর বেশি কিছু হলে তো মেনে নিতে পারবে না দেখা যাচ্ছে।
নিতি বলল..
মানে!
ইতি বলে উঠে..
নাহ কিছু না। এমনেই বললাম আর কি!
আমি বলে উঠি…
আচ্ছা আমরা যাই আমাদের ক্লাস আছে। ইতি চল!
বলেই সেখান থেকে ইতি কে নিয়ে আসলাম। আসবার আগে উনার দিকে একবার তাকালাম। কিন্তু উনার চোখ ফোনের দিকে।

কয়েকদিন পর…
ঘরে কোলে বালিস নিয়ে সোফায় বসে আছি। পাশেই একটা নতুন ফোন, কাল কিনে দিয়েছেন উনি। ইতি ফোনে কি জানি ঘাঁটাঘাঁটি করল। জানি না আমি! আমার ভাবনা গত কালকের ঘটা ঘটনা নিয়ে। প্রায় এই কয়েকদিন আমি ভার্সিটিতে উনার সাথে থাকি। নিতি আর ওর বন্ধুরা ব্যাপারটা ভালো ভাবে নেয় না দেখেই বোঝা যাচ্ছে না কিন্তু কিছু বলছেও না। যাই হোক এতে আমার কি! কিন্তু গতকাল! গতকাল আমরা সবাই মিলে রেস্টুরেন্টে গিয়েছিলাম। আমি এক পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলাম। সবাই বসছিল একে একে। ইতি আমাকে টেনে এক পাশে বসাল। আর উনিও এসে আমার পাশে বসলেন। আমি তো বোকার মতো সবার মুখ দেখতে লাগলাম। শুধু কি তাই! খাবার মুখে লেখেছিলো বলে টিস্যু দিয়ে পরিস্কার করে দিয়েছে। তবে সেটা আমার কাছে খুব মজা লাগছিলো। কারন নিতি’র মুখ টা দেখার মতো ছিলো। মনে মনে হাসতে থাকি। নিতি’র সামনে উনি আমাকে কেয়ার করলে ভালোই লাগে তবে জানি নিতি শুধু সুযোগ খোঁজার অপেক্ষায় আছে। যখন আমাকে একা পাবে সব অসুল নেবো।

এসব ভাবতে থাকি তখন কেউ আমার হাত ধরে টান দেওয়ায় আমার ভাবনায় ছেদ ঘটে। তাকিয়ে দেখি উনি। খুব ব্যস্ত মনে হচ্ছে উনাকে। এসেই আমার হাত ধরে বললো…
তাড়াতাড়ি উঠো শপিং এ যেতে হবে।
অবাক হয়ে…
আপনি! এখন! এভাবে হঠাৎ করে কোথা থেকে আসলেন। আর আসলেন তো আসলেন এতো তাড়াহুড়ো কেন করছেন।
আরে করছি কি আর সাধে। আনিকার বাবা আনিকার বিয়ের শোকে ‌অসুস্থ। সব দেখাশোনার দায়িত্ব দিয়েছে আমাকে। আমি নাও করতে পারছি না। যাই হোক, পরশু গায়ে হলুদ! তোমার কেনাকাটা করার কিছু নেই। আমি কাল কোনোমতে যেতে পারবো না অনেক কাজ আছে আমার। তাই বলছি এখন চলো!
আচ্ছা সমস্যা নেই আমি ইতি’র সাথে চলে যাবো।
আমার আছে, আমার শপিং করতে হবে চলো।
বললেই হতো আপনার শপিং করবেন! এতো ভালো মানুষি দেখান কেন সবসময়!
তুমি ভূতনি তাই! ওঠো না দেরি হচ্ছে।
আরে বাবা এতো তাড়া দিচ্ছেন কেন?
অতঃপর আমি ওঠে আয়ানার সামনে দাঁড়াতে গেলাম হঠাৎ উনি আমাকে ঘুরিয়ে দু’হাত আমার গালে রেখে . তোমাকে বেশ সুন্দর লাগছে, এখন আর আয়না দেখা লাগবে না চলো! মেয়েরা আয়নায় দেখলে আর উঠতে চায় না।

কিহহ!

কিন্তু উনি আমার কথা না শুনে আমাকে টানতে টানতে নিচে নিয়ে গেলেন। আমার কোনো কথাই শুনছেন না। গাড়ি’র কাছে আসতে আমি কোনোমতে হাত ছাড়িয়ে বললাম..
আরে দাঁড়ান দাঁড়ান কি করছেন, আমার চুল সব এলোমেলো হয়ে আছে।
আরে নেই! অনেক সুন্দর লাগছে তোমাকে। পুরোই ভূতনি ভূতনি!
ধুর! ২ মিনিট দাঁড়ান আমি আসছি।
চলে আসতে নিলাম। উনি আবারও আমার হাত ধরে বললেন…
সত্যি অনেক সুন্দর লাগছে। যেও না প্লিজ!
আরে শুধু দু মিনিট। যাবো আর আসবো।
আমাকে নিজের কাছে টেনে…
নিজেকে দেখবে তো শুধু! দাঁড়াও।
উনি নিজের সানগ্লাস বের করে নিজের চোখে দিয়ে বললো..
দেখো অনেক সুন্দর লাগছে তোমায়! অনেক সুইট,অনেক কিউট। এখন চলো!

বলেই আমাকে টেনে গাড়িতে বসিয়ে দিলো। উনার এসব কান্ড দেখে খুব হাসি পাচ্ছিল আমার। মিটিমিটি হাসছিলাম আমি! উনি গাড়ি ড্রাইভ করতে করতে বললেন…
আচ্ছা আনিকার বিয়ের উপহার কি দেবো বলো তো!
আপনার ফ্রেন্ড আপনি জানেন!
বাট মেয়ে তো তুমি নাহ!
তাহলে বিয়ের পর কোথায় ঘুরতে যাবার ব্যবস্থা করুন!
সেটা আকাশ করবে, জানো আনিকার একটা গাড়ি খুব পছন্দ হয়েছে। মার্কেটে নিউ এসেছে। ওইটা গিফট করবো।
হুম করতে পারেন, আনিকা আপু খুশিও হবে অনেক।
হুম ঠিক বলেছো।
অতঃপর আমরা দু’জনেই শপিং মলে পৌঁছালাম। উনি আমার হাত ধরে হেঁটে নিয়ে যাচ্ছিলেন। আমি উনার দিকে তাকিয়ে আছি।‌ হঠাৎ দেখলাম উনার মুখ কেমন মলিন হয়ে গেছে। উনি হাঁটাও থামিয়ে দিলেন। আমি তখন সামনের দিকে তাকালাম!

#চলবে….

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button